সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বটিয়াঘাটায় কৃষি ব্যাংক কর্তৃক গ্রাহক সেবা উন্নয়ন বিষয় মতবিনিময় সভা ইবাদত বন্দেগী আর ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র শবে বরাত পালিত বাংলাদেশের বিচারকাজ পর্যবেক্ষণ করলেন ভারতের প্রধান বিচারপতি গর্ভের সন্তানের লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ করা যাবে না: হাইকোর্ট বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৫০ নারী, গেজেট মঙ্গলবার পাইকগাছায় ৫০০’গ্রাম গাঁজা সহ আটক-২ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ সরদার রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) প্রাপ্তির জন্য নির্বাচিত খুলনায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে চারটি দোকান ভস্মীভূত কুরআন ও দ্বীনি শিক্ষা শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় মূল্যবোধের আদর্শ নাগরিক গড়ে তুলবে ; শেখ জুয়েল এমপি নগরীতে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় যুবক নিহত

পাইকগাছায় তাজমিরা হত্যার ক্লু উদ্ধার,গ্রেপ্তার-৩

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩

পাইকগাছা প্রতিনিধি।।খুলনার পাইকগাছায় তাজমীরা হত্যা মামলার পূরো মোটিভ সহ হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি সহ অন্যান্য আলামত উদ্ধার করেছে পুলিশ।

হত্যাকান্ডে জড়িত চাঁদখালী ইউপি’র ধামরাইল গ্রামের শহীদুল (মাষ্টার) সুন্দরবনে পালানোর চেষ্টাকালে শনিবার বিকেলে কুমখালী থেকে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেন। এ মামলায় এ পর্যন্ত ৩ ব্যক্তির গ্রেপ্তারের তথ্য দিয়ে ওসি মোঃ জিয়াউর রহমান বলেন, শহীদুল ( মাষ্টার) হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা বলে গতকাল আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। পুলিশ জানিয়েছে, গত ৩০ জানুয়ারি রাতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে চাঁদখালীর ধামরাইলের ওবায়দুল্লাহ মীরের স্ত্রী ৩ কন্যা সন্তানের মা তাজমীরা (৩৮) কে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে চায়ের দোকানে ফেলে হত্যা করে বাড়ীর ৫০ গজ দুরে বোরো ধান ক্ষেতে লাশ ফেলে দুর্বত্তরা রেখে পালিয়ে যায়। পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ ও আদালতে ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে শহীদুল ( মাষ্টার) এ হত্যাকান্ড সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন। ২০১৮ সালে নিহতের স্বামী ওবায়দুল্লাহ মীরের সাথে তার বড় ভাই মৃতঃ সাংবাদিক আব্দুল্লাহ মীরের ছেলে খুলনার বাসিন্দা ইমন ও মেয়ে মৌসুমীর মধ্যে ৭ শতক জমি নিয়ে দ্বন্দ্ব হয়। এক পর্যায়ে ইমন-মৌসুমী বাড়ীর চাচা কামরুল মীরের কাছে এ জমি বিক্রয় করলে ত্রিমুখি বিরোধ দেখা দেয়। এ নিয়ে বহুবার সালিশী সভায় মিমাংশা না হলে সর্বশেষ ওবায়দুল্লাহ ও কামরুল মীর পাইকগাছার নির্বাহী কোর্টে পাল্টা-পাল্টি ১৪৪ ধারার মামলা করলে পুলিশ দু’পক্ষকে নোটিশ করে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে নির্দেশ দেয়। মামলা তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আনজীর হোসেন জানান, জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে তৃতীয় পক্ষ ফাঁয়দা নিতে কামরুল মীর ও ইমন-মৌসুমীকে শায়েস্তা করতে ওবায়দুল্লাহ’র সেঝভাই চা দোকানদার জেলহাজতে আটক শহীদুল্লাহ মীর ও শহীদুল (মাষ্টার) সহ ২/৪ জন খুঁনের পরিকল্পনা নিয়ে টার্গেট করেন আপন ভাই ওবায়দুল্লাহ’র স্ত্রী তাজমিরাকে। পরিকল্পনা মতে ৩০ জানুয়ারি সন্ধ্যায় জমি বুঝে দেবার কথা বলে সেঝ ভাসুর শহীদুল্লাহ মীরের চায়ের দোকানে তাজমিরাকে ডাকা হয়। ঐদিন রাতের খাবার খেয়ে স্বামী ওবায়দুল্লাহ এক রুমে ও মেয়ে তামান্নাকে নিয়ে অন্যরুমে তাজমিরা ঘুমিয়ে পড়েন। রাত ১২ দিকে তাজমিরাকে শহীদুল্লাহ মীরের চায়ের দোকানে ডেকে নিয়ে দরজা বন্ধ করে শহীদুল্লাহ ও শহীদুল ( মাষ্টার) ৪/৫ জন তাজমিরার গলায় গামছা পেচিয়ে টান দেয়। এক পর্যায়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে ৩/৪ জন লাশ ঘাড়ে করে ওয়াপদার ভিতরে বোরো ধান ক্ষেত ফেলে রেখে নিহতের গলায় ছুরি দিয়ে কয়েকটি টান মেরে পালিয়ে যায়। পরের দিন ৩১ জানুয়ারি পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য খুমেক হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনায় নিহতের ভাই মৌখালীর আলমগীর গাজী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন,যার নং-৩২।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park