বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পাইকগাছায় বাল্য বিবাহ বন্ধ সহ অর্থ দন্ড প্রদান করেন-ইউএনও মাহেরা নাজনীন খুলনার গাইকুরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় যুবকের মরদেহ উদ্ধার রামপালে উপজেলা নির্বাচনে ৩ পদে ১২ জনের মনোনয়নপত্র জমা পূত্র পাচারের অভিযেগে এক নারীর বিরুদ্ধে আড়ংঘাটা থানায় অভিযোগ দিঘলিয়া উপজেলা প্রশাসনের বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব; নাব্যতা সঙ্কটের শংকা পাইকগাছায় ১ম ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ একাডেমির উদ্বোধন খুলনায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাঙালি জাতির শাশ্বত ঐতিহ্যের প্রধান অঙ্গ পহেলা বৈশাখ : রাষ্ট্রপতি মুক্তিপণ পেয়ে জাহাজ ছাড়ে জলদস্যুরা, নাবিকরা সুস্থ : মালিক পক্ষ

সিভিল সার্জনের ভুল সিজারে নবজাতকের মৃত্যু!

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২২

খুলনার কয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অন্তস্বত্বা এক নারীকে সিজার করতে গিয়ে নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মায়ের অবস্থাও আশংকাজনক। তাকে কয়রা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। শনিবার (১৫ অক্টোবর) বিকেলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অপারেশন থিয়েটারে খুলনার সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদের ভুল সিজারে ঘটনাটি ঘটে।

 

আশংকাজনক অবস্থায় চিকিৎসা নেয়া রোগির নাম ফাতিমা খাতুন। কয়রা উপজেলার মঠবাড়িয়া এলাকার আসাদুর মোড়লের স্ত্রী তিনি।

ফাতিমার স্বামী আসাদুর মোড়ল জানান, সাত হাজার টাকার বিনিময়ে খুলনার সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদের সাথে অন্তস্বত্বা নারীর পরিবারের সদস্যদের চুক্তি হয়। নির্দিষ্ট সময়ে ভুল অপারেশনে নবজাতকের মারা যায়।

কয়রা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কমকর্তা ডা. সুদিব বালা জানান, “অপারেশনটি সিভিল সার্জন করেছেন।” শনিবার রাতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. এম এ হাসানও একই তথ্য জানান।

রোগির স্বজনরা জানান, সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় ফাতিমাকে অপারেশন থিয়েটারে প্রবেশ করানো হয়। তার আগে সব ধরণের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানো হলে নবজাতকসহ মা সুস্থ আছেন বলে সিভিল সার্জন তাদের জানান। তারা বলেন, সবাই সুস্থ অবস্থায় অপরাশেন থিয়েটারে গেলেও নবজাতক মৃত অবস্থায় এলো। এই সময় রোগির স্বজনরা বিক্ষোভ করলে ডা. সুজাত দ্রুত খুলনায় চলে আসেন।

কয়রা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কমকর্তা ডা. সুদিব বালা জানান, প্রতি মাসে সিভিল সার্জন কয়রা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে চুক্তিভিত্তিক ৫০ থেকে ৬০টির মতো এপেন্ডিক্স, ১২টির মতো সিজারসহ অন্যান্য অপারেশন করে থাকেন। তিনি জানান, সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদের গ্রামের বাড়ি কয়রা উপজেলায়। সিভিল সার্জন হিসেবে পদোন্নতি পাবার আগে তিনি ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ছিলেন।

তবে নিজের ভুলে নবজাতকের মৃত্যুর বিষয় অস্বীকার করেছেন সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ। তিনি দাবি করেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সভার কারণে তিনি সেখানে গিয়েছিলেন। সেখানে অন্তস্বত্বা এক রোগি ভর্তি দেখতে পেয়ে তিনি অপারেশন করেন। অপারেশনে মৃত সন্তান জম্ম নিয়েছে ।

সিভিল সার্জন দাবি করেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অন্যান্য চিকিৎসক ঢাকায় ট্রেণিংয়ে থাকায় তিনি অপারেশন করেছেন। তবে তাঁর এই দাবি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলেছেন, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কমকর্তা ডা. সুদিব বালা। তিনি বলেন, কয়রা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোন চিকিৎসকই ঢাকাতে ট্রেণিংয়ে নেই। অপারেশনের সময় তিনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেই ছিলেন। সন্ধ্যায় তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে কয়রা ছাড়েন।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park