বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পাইকগাছায় বাল্য বিবাহ বন্ধ সহ অর্থ দন্ড প্রদান করেন-ইউএনও মাহেরা নাজনীন খুলনার গাইকুরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় যুবকের মরদেহ উদ্ধার রামপালে উপজেলা নির্বাচনে ৩ পদে ১২ জনের মনোনয়নপত্র জমা পূত্র পাচারের অভিযেগে এক নারীর বিরুদ্ধে আড়ংঘাটা থানায় অভিযোগ দিঘলিয়া উপজেলা প্রশাসনের বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব; নাব্যতা সঙ্কটের শংকা পাইকগাছায় ১ম ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ একাডেমির উদ্বোধন খুলনায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাঙালি জাতির শাশ্বত ঐতিহ্যের প্রধান অঙ্গ পহেলা বৈশাখ : রাষ্ট্রপতি মুক্তিপণ পেয়ে জাহাজ ছাড়ে জলদস্যুরা, নাবিকরা সুস্থ : মালিক পক্ষ

সাতক্ষীরায় ২৯২ অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা পাচ্ছেন ‘বীর নিবাস’, শিগ‌গিরই উদ্বোধন

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২২

সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি।।সাতক্ষীরা ২৯২টি অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার পাচ্ছেন বসবাসের জন্য স্থায়ী ঠিকানা সরকারিভাবে নির্মিত ‘বীর নিবাস’। অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় জেলার সাতটি উপজেলার অসচ্ছল বীরমুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জন্য এসব ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। ১৬ ডিসেম্বরের পূর্বে সুবিধাজনক যেকোন সময়ে প্রধানমন্ত্রী ভার্চুয়ালী এই বীর নিবাসের উদ্বোধন করবেন বলে প্রকল্প পরিচালক স্বাক্ষরিত এক পত্রে জানানো হয়েছে।

জেলা ত্রাণ ও পূর্নবাসন অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার সাত উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় মোট ২৯২টি ঘরের নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। এরমধ্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১২টি এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ৪১টি। তালা উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ৮টি এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ৩৪টি। কলারোয়া উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১২টি ও দ্বিতীয় পর্যায়ে ১৪টি। কালিগঞ্জ উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১২টি এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ৪৩টি। আশাশুনি উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১২টি এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ৪৮টি, দেবহাটা উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১২টি ও দ্বিতীয় পর্যায়ে ১২টি এবং শ্যামনগর উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১২টি ও দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে।

সূত্র আরও জানায়, অসচ্ছল-শহীদ-প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্ত্রী ও সন্তানদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৪ লাখ ১০ টাকা ব্যয়ে একেকটি পাকা ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী’র এই উদ্যোগের অংশ হিসেবেই সাতক্ষীরা জেলার ২৯২জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সরকারি এসব ঘর বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি ২২ ফুট প্রস্থ আর ২৫ ফুট দৈর্ঘ্যরে এ ঘরটিতে ২টি বেড রুম, ১টি ড্রইং রুম, ১টি ডাইনিং রুম, ১টি কিচেন রুম ও ২টি বাথরুমসহ থাকছে সুপেয় পানির ব্যবস্থা।

বীর নিবাস নির্মাণের কার্যাদেশ পাওয়া ঠিকাদার আব্দুস সামাদ জানান, দ্রব্যমূল্যর ঊর্ধ্বগতির কারণে এসব ঘর নির্মাণ করতে গিয়ে তাদের ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে। তবুও জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তারা ঘর নির্মাণ কাজ শেষ করছেন।

জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সদস্য সচিব লায়লা পারভীন সেঁজুতি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে বেশিরভাগ নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষ অংশগ্রহণ করেছিলেন। সরকার প্রত্যেক মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতা দিচ্ছেন, একই সাথে যে ঘরগুলো দিচ্ছে তা অবশ্যই ভালো কাজ। এতে করে অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধারা তাদের মাথা গোঁজার ঠাঁই পাবেন এবং পরিবার পরিজন নিয়ে জীবনের বাকি সময় টুকু সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারবেন।

তালা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ওবায়দুর হক বলেন, তালা উপজেলায় ৪২টি বীর নিবাসের কাজ চলমান রয়েছে। ডিজাইন মোতাবেক সঠিক তদারকির মাধ্যমে উপজেলার অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য এ ঘরগুলো নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বেশ কিছু ঘরের নির্মাণ কাজ শেষে উদ্বোধনের জন্য চলছে শেষ মুহূর্তের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ।

আশাশুনি উপজেলা প্রকল্প বাস্তাবায়ন কর্মকর্তা মোঃ সোহাগ খান বলেন, উপকূলীয় ও দুর্যোগ প্রবণ উপজেলা হচ্ছে আশাশুনি। এ উপজেলার ৬০জন‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌ অসচ্ছল বীরমুক্তিযোদ্ধা পরিবার এ ঘর পাচ্ছেন। তবে দুর্যোগ প্রবণ উপজেলা হওয়ায় ঘরের নির্মাণ কাজ বাস্তবায়নে কিছুটা বিলম্ব হলেও অধিকাংশ ঘরের নির্মাণ কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। তবে উদ্বোধনের জন্য বেশ কিছু ঘর প্রস্তুত করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ ইয়ারুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভীশন বাস্তবায়নে সরকার সারা দেশে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করেছে। তারই অংশ হিসেবে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে থেকে অগ্রাধীকার ভিত্তিতে অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বীর নিবাস নির্মাণ করছে সরকার। জেলায় বীর নিবাসের কাজ সঠিকভাবে বাস্তবায়নের লক্ষে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিদের্শনায় অত্যন্ত স্বচ্ছতার সাথে কাজগুলো বাস্তবায়িত হচ্ছে।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park