সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বটিয়াঘাটায় কৃষি ব্যাংক কর্তৃক গ্রাহক সেবা উন্নয়ন বিষয় মতবিনিময় সভা ইবাদত বন্দেগী আর ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র শবে বরাত পালিত বাংলাদেশের বিচারকাজ পর্যবেক্ষণ করলেন ভারতের প্রধান বিচারপতি গর্ভের সন্তানের লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ করা যাবে না: হাইকোর্ট বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৫০ নারী, গেজেট মঙ্গলবার পাইকগাছায় ৫০০’গ্রাম গাঁজা সহ আটক-২ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ সরদার রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) প্রাপ্তির জন্য নির্বাচিত খুলনায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে চারটি দোকান ভস্মীভূত কুরআন ও দ্বীনি শিক্ষা শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় মূল্যবোধের আদর্শ নাগরিক গড়ে তুলবে ; শেখ জুয়েল এমপি নগরীতে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় যুবক নিহত

তেরখাদায় অবৈধ ডেন্টাল কেয়ারের ছড়াছড়ি

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২২

তেরখাদা প্রতিনিধি।।খুলনা তেরখাদা উপজেলায় যত্রতত্র গড়ে উঠেছে ডেন্টাল কেয়ার।এগুলোর বেশির ভাগেরই কোনো অনুমোদন নেই।নিয়মমাফিক নেই চিকিৎসক, নেই অভিজ্ঞ টেকনিশিয়ান ও বৈধ কাগজপত্রও। এসব ডেন্টাল কেয়ারে উপজেলার অনেক মানুষ অপচিকিৎসার শিকার হচ্ছেন।

জানা গেছে, ওষুধ ব্যবসায়ী ও হাতুড়ে চিকিৎসকেরা দাঁতের চিকিৎসক সেজে ডেন্টাল কেয়ার খুলে বসেছেন। অনেকে কিছু না বুঝেই তাঁদের কাছ থেকে দাঁতের চিকিৎসা নিয়ে প্রতারিত হচ্ছেন। প্রশাসন এসব দেখেও না দেখার ভান করছে।তাঁদের অপচিকিৎসার কারণে মানুষ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হতে পারেন বলে ডেন্টাল সার্জন ডা. আমিনুল ইসলাম জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তেরখাদা উপজেলা সদরের কাটেংগা বাজারসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১৫-২০টি ডেন্টাল কেয়ার রয়েছে। রোগীদের আকৃষ্ট করার জন্য এসব প্রতিষ্ঠানের নামে টানানো হয়েছে আকর্ষণীয় ব্যানার ও সাইনবোর্ড।ভুয়া পদ-পদবি ও অভিজ্ঞতার তথ্য ব্যবহার করে তাঁরা রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করে সেবার নামে বাণিজ্য করে যাচ্ছেন।

উপজেলার ইখড়ি এলাকার রিংকি বেগম নামে এক ভুক্তভোগী জানান, তিনি উপজেলা সদরের এক ডেন্টাল কেয়ারে চিকিৎসা করিয়ে দীর্ঘদিন ভুগে পরে খুলনায় ডেন্টাল চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে সুস্থ হয়েছেন। সরকারি বিধি অনুযায়ী, ডিপ্লোমাধারী টেকনিশিয়ানরাও চেম্বার খুলে জটিল রোগের কোনো চিকিৎসা দেওয়ার বিধান নেই। অথচ দাঁত ওঠানো, বাঁধানো, রুট ক্যানেল, জিআই, ফিলিং,দাঁত সোজা করার মতো স্পর্শকাতর চিকিৎসার কাজ করে যাচ্ছেন এসব কতিপয় হাতুড়ে চিকিৎসক।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হেলেনা আক্তার বলেন, ডেন্টাল বা মেডিসিন হোক কেউ এমবিবিএস ছাড়া ডাক্তার লিখতে পারবেন না। যদি ডিপ্লোমা ডিগ্রি থাকে, তাহলে প্র্যাকটিস করবে, কিন্তু স্পেশাল কোনো ট্রিটমেন্ট করতে পারবেন না।শিগগিরই এসব ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

খুলনা জেলা সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ জানান, আইনবহির্ভূতভাবে যেসব ডেন্টাল কেয়ার তাদের ব্যবসা পরিচালনা করছে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।কোনোভাবেই যেখানে সেখানে নিয়মবহির্ভূতভাবে দন্ত চিকিৎসা করার কোনো সুযোগ দেয়া হবে না।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park