বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পাইকগাছায় বাল্য বিবাহ বন্ধ সহ অর্থ দন্ড প্রদান করেন-ইউএনও মাহেরা নাজনীন খুলনার গাইকুরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় যুবকের মরদেহ উদ্ধার রামপালে উপজেলা নির্বাচনে ৩ পদে ১২ জনের মনোনয়নপত্র জমা পূত্র পাচারের অভিযেগে এক নারীর বিরুদ্ধে আড়ংঘাটা থানায় অভিযোগ দিঘলিয়া উপজেলা প্রশাসনের বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব; নাব্যতা সঙ্কটের শংকা পাইকগাছায় ১ম ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ একাডেমির উদ্বোধন খুলনায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাঙালি জাতির শাশ্বত ঐতিহ্যের প্রধান অঙ্গ পহেলা বৈশাখ : রাষ্ট্রপতি মুক্তিপণ পেয়ে জাহাজ ছাড়ে জলদস্যুরা, নাবিকরা সুস্থ : মালিক পক্ষ

দুই যুগেও কাটেনি জলাবদ্ধতা, ময়লা পানি ভেঙে যাতায়াত করায় পচন ধরেছে পায়ে

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৯ জুন, ২০২৩

 

স্টাফ রিপোর্টার।।গত দুই যুগেও কাটেনি জলাবদ্ধতা, ময়লা পানি ভেঙে যাতায়াত করতে করতে পচন ধরেছে পায়ে।সামান্য জোয়ার এবং বৃষ্টির পানিতে ২/৩ ফুট তলিয়ে যায় রাস্তাটি যা কিনা একাধিকবার স্থানীয় কাউন্সিলর এবং সিটি কর্পোরেশনকে অবহিত করার পরেও মেলেনি কোন প্রতিকার।একজন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের চলাচলের একমাত্র রাস্তাটির এ ভগ্নদশা সত্যি দুঃখজনক।

এমনটাই বলছিলেন খুলনা মহানগরীর ২৯ নং ওয়ার্ড এর বাসিন্দা মো: শরিফুল আলম।তিনি বলেন পৈতৃক সূত্রে আমাদের এই বাড়িটি খুলনার প্রাণকেন্দ্র সুন্দরবন সরকারি কলেজের বিপরীতে অবস্থিত।আমার পিতা এ্যাড. মরহুম আব্দুল হাকিম, আমার বড় ভাই শফিক ছিলেন একজন মুক্তিযোদ্ধ। বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধা বান্ধব সরকার,এই সরকারের আমলেই মুক্তিযোদ্ধারা পেয়েছে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানের স্বীকৃতি অথচ আমরা সেখানে সামান্য জোয়ারের পানিতে ঘর থেকে বের হতে পারছি না।বর্তমান সভ্য সমাজে এ সত্যি এক বিভীষিকাময়।তাছাড়া পার্শ্ববর্তী বাড়ির সুয়ারেজ এর নোংড়া পানি এবং জোয়ারের পানি এ দুয়ে মিলে যেন ভোগান্তির মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে আরও শতগুন।

ব্যক্তি উদ্যোগে রাস্তার সংস্কারের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা ব্যক্তি উদ্যোগে রাস্তাটি সংস্কার করতে চেয়েছি কিন্তু পার্শ্ববর্তী গফফার খান গংরা যতবার কাজ করতে গিয়েছি ততবারই বাধা দিয়েছে।তারা নানা অজুহাতে এ রাস্তাটি সংস্কার করতে দিতে চায় না। তারা ব্যক্তিগত প্রভাব খাটিয়ে রাস্তা সংস্কারের কাজ বন্ধ করে দেয়। এ বিষয়ে কয়েকবার বৈঠক হলেও সমাধান হয়নি।

সরজমিনে জানা যায় খুলনা মহানগরীর সুন্দরবন সরকারি কলেজের বিপরীতে ১০৫ নং বাড়িটি মরহুম এ্যাড. আব্দুল হাকিম সাহেবের।এখানে পাশাপাশী আরো দুটি বাড়ি রয়েছে যাথাক্রমে ১০৩ এবং ১০৪।এসকল বাড়িতে আরো প্রায় ২০/২২ টি পরিবার থাকে। তাদের প্রবেশের একমাত্র রাস্তাটির নাম আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম বাই লেন।যা গত ১৯৯১ সালে সিটি কর্পোরেশনের আওতায় শেষবারের মতো নির্মাণ কাজ হয়েছিলো।ম্যাপেও তা উল্লেখ রয়েছে।সংস্কারের অভাবে গত প্রায় ২০ বছর ধরে এ রাস্তা দিয়ে চলাচল সম্পূর্ণ অনুপযোগী অথচ এ যেনো দেখার কেউ নেই। বারংবার সিটি কর্পোরেশন এবং স্থানীয় কাউন্সিলরকে জানানো হলেও তারা কোন প্রতিকার করতে এগিয়ে আসেননি।এ বিষযে স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তির সঙ্গে কথা হলে তারা বলেন,প্রতিদিন বাধ্য হয়েই উক্ত পচা পানি দিয়ে যাতায়াত করায় আমাদের শরীরে (পায়ে) ঘা পাছরা দেখা দিয়েছে।

এমতাবস্থায় দ্রুত রাস্তাটি সংস্কার করে জলবদ্ধতা নিরশনে খুলনা সিটি কর্পোরেশন আন্তরিকতা দেখাবেন বলে মনে করেন এলাকাবাসী।

 

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park