বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

খুলনায় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ঘর পাচ্ছে ২৩৬ পরিবার

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২২

নিজস্ব প্রতি‌বেদক।। ঈদ উপহার হিসেবে প্রধানমন্ত্রী ৩২৯০৪ টি ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারের হাতে জমির দলিল ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করবেন। এরই অংশ হিসেবে খুলনা জেলায় ১৪টি রূপসায়, ৬২টি তেরখাদায়, ৩৫টি দিঘলিয়ায়, চারটি ফুলতলায়, ৬৫টি ডুমুরিয়ায়, ৩৬টি পাইকগাছায় এবং দাকোপে ২০টি পরিবারের কাছে জমিসহ ঘর হস্তান্তর করা হবে।

খুলনার জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদার আজ (রবিবার) বিকেলে তাঁর সম্মেলনকক্ষে স্থানীয় ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় ও প্রেস ব্রিফ্রিংএ এসকল তথ্য জানান।

জানানো হয়, ৩য় পর্যায়ে খুলনার জন্য ০৫টি ধাপে সর্বমোট ৯০৬টি গৃহের বরাদ্দ পাওয়া গেছে এবং গৃহ নির্মাণ কার্যক্রম চলমান আছে। গড় অগ্রগতি ৪৬ শতাংশ। ৩য় পর্যায়ে তেরখাদা উপজেলায় ১১৭ টি, বটিয়াঘাটা উপজেলায় ২৩০টি, ডুমুরিয়া উপজেলায় ১৬৫টি, পাইকগাছা উপজেলায় ৯৭টি, দাকোপ উপজেলায় ৩০টি, দিঘলিয়া উপজেলায় ১০০টি, ফুলতলা উপজেলায় ৮১টি, রূপসা উপজেলায় ৭৬টি এবং কয়রা উপজেলায় ১০টি গৃহের বরাদ্দ পাওয়া গেছে।

১ম পর্যায়ে প্রতিটি ঘরের জন্য বরাদ্দ ছিল ১,৭১,০০০ টাকা। ২য় পর্যায়ে প্রতিটি ঘরের জন্য বরাদ্দ ছিল ১,৯০,০০০ টাকা। ৩য় পর্যায়ে প্রতিটি ঘরের জন্য বরাদ্দ ২,৫৯,৫০০ টাকা। ২য় পর্যায়ে ৪টি জানালার পরিবর্তে ৫টি জানালা সংযুক্ত করা হয়েছে। ৩য় পর্যায়ে ঘরের বারান্দায় আরসিসি পিলার, ঘরের বেজমেন্টে আরসিসি ঢালাই, গ্রেডবীম ও টানা লিন্টেল সংযুক্ত করা হয়েছে।

খুলনায় উপযুক্ত খাস জমির সংস্থান না থাকায় কোন কোন উপজেলায় জমি ক্রয়পূর্বক গৃহ নির্মাণ করা হচ্ছে। এ প্রেক্ষিতে পাইকগাছায় ৪৭টি ঘরের জন্য ১.০৩ একর, দিঘলিয়ায় ৬৫টি ঘরের জন্য ১.৬৮৭১ একর, ফুলতলায় ৭৭টি ঘরের জন্য ১.৬০ একর এবং রূপসায় ১২টি ঘরের জন্য ০.২৪ একরের জন্য সর্বমোট ২০১টি ঘরের জন্য ৪.৫৫৭১ একর জমি ক্রয় সম্পন্ন হয়েছে।

আরও জানানো হয়, খুলনা জেলায় ১ম পর্যায়ে ৯২২ টি গৃহ নির্মাণের কাজ সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে এবং শতভাগ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ২০২১ সালের ২৩ জানুয়ারি ১ম পর্যায়ের জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেছেন। ২য় পর্যায়ে ১৩৫১ টি গৃহের বরাদ্দ পাওয়া যায়। গৃহ নির্মাণের কাজ সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে এবং শতভাগ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ২০২১ সালের ২০ জুন ২য় পর্যায়ের জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন।

জেলা প্রশাসক তাঁর বক্তৃতায় বলেন, খুলনা জেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের পুনর্বাসনের ন্যায় বিশাল কর্মযজ্ঞ সফলভাবে পরিচালিত হচ্ছে। উপকারভোগী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। পুনর্বাসনের লক্ষ্যে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে সরকারি খাস জমি থেকে অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করা হয়েছে। গৃহনির্মাণের ক্ষেত্রে প্রকল্প কার্যালয় কর্তৃক নির্ধারিত ড্রইং, ডিজাইন এবং স্পেসিফিকেশন শতভাগ মেনে চলা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১ম পর্যায়ে ৬৬১৮৯ টি পরিবারের প্রত্যেককে ২ শতক সরকারি খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদানপূর্বক একক দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট সেমি-পাকা গৃহ নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। ২য় পর্যায়ে দেশের সকল জেলায় সর্বমোট ৫৩৩৪০ টি পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম সমাপ্ত হয়েছে। ৩য় পর্যায়ে দেশের সকল জেলায় সর্বমোট ৬৫ হাজার ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদানের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

ব্রিফিং এ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ সাদিকুর রহমান খান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোছাঃ শাহানাজ পারভীন, খুলনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজাসহ ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।।

 

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park