সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:২৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বটিয়াঘাটায় কৃষি ব্যাংক কর্তৃক গ্রাহক সেবা উন্নয়ন বিষয় মতবিনিময় সভা ইবাদত বন্দেগী আর ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র শবে বরাত পালিত বাংলাদেশের বিচারকাজ পর্যবেক্ষণ করলেন ভারতের প্রধান বিচারপতি গর্ভের সন্তানের লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ করা যাবে না: হাইকোর্ট বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৫০ নারী, গেজেট মঙ্গলবার পাইকগাছায় ৫০০’গ্রাম গাঁজা সহ আটক-২ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ সরদার রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) প্রাপ্তির জন্য নির্বাচিত খুলনায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে চারটি দোকান ভস্মীভূত কুরআন ও দ্বীনি শিক্ষা শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় মূল্যবোধের আদর্শ নাগরিক গড়ে তুলবে ; শেখ জুয়েল এমপি নগরীতে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় যুবক নিহত

খুলনার ময়ূরী আবাসিক প্রকল্প এখন নগরীর অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র : উৎসব ছাড়াই মানুষের ঢল

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১২ জুলাই, ২০২৩

 

 

ডেস্ক রিপোর্ট :খুলনায় নতুন এক বিনোদন কেন্দ্র হয়ে উঠছে কেএডিএ ময়ূরী আবাসিক প্রকল্প। কোন উৎসব ছাড়াই প্রতিদিন শতশত মানুষের ঢল দেখা যায়। খুলনা সোনাডাঙ্গা বাসটার্মিনাল বাইপাস সড়ক থেকে মাত্র এক কিলোমিটার পশ্চিমে এই আবাসিক প্রকলপটি। অবসরের সময়ে আনন্দ পিপাসু শহরের মানুষদের বিনোদনের খোরাক মেটাতে প্রতিদিন শত শত মানুষের ঢল বাড়ছে। এছাড়া চারপাশে বড় বড় ঘাসফুলের গন্ধ, প্রাকৃতিক পরিবেশ, ফুরফুরে বাতাসে যেন দিন দিন এক মনোমুগ্ধকর পরিবেশ হয়ে উঠছে ময়ূরী। এছাড়া এই প্রকল্পটি প্রবেশ করতে হলে কোন টাকা খরচ হয়না। আগে দশ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে প্রবেশ করতে হতো। ময়ূরী আবাসিক প্রকল্পের ভিতরে রয়েছে দৃষ্টিনন্দন রং বে-রং এর ছাতা, ছোট লেক ব্রিজ, আর দর্শনার্থীদের বসার জন্য সু বন্দোবস্ত। রয়েছে খাবার হোটেল, ছোট বাচ্চাদের দোলনাসহ সুবিশাল লম্বা রাস্তা। লেকের চার পাশের পাড় টাইলস দিয়ে বাধানো । আর সন্ধ্যা হলে জ¦লে উঠে সারি সারি লাইট। খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কতৃক ৯০ একর জমির উপর এই আবাসন প্রকল্প করা হয়েছে। প্রকৃতিক সৌন্দযর্ দেখতে এখানে দেখা দেখা মিলবে শিশু-কিশোর, কপোত-কপোতি, বৃদ্ধ-বৃদ্ধাসহ বিভিন্ন বয়সের, ধর্মের, বর্ণের হাজারও মানুষ। এছাড়া ধর্মিও উৎসব সময়ে থাকে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়। শারীরিকভাবে ফিট রাখতে প্রতিদিন সকাল বিকালে কোলাহল মুক্ত পরিবেশে হাটা চলা করছে মানুষ। এমনকি অনেকে ভাবতে পারেন এটা খুলনা হাতির ঝিল। এবিষয়ে কথা হয় ময়ুরী আবাসিক প্রকল্পে খোস গল্পে মত্ত থাকা দম্পত্তি মো. আলামিন গাজীর সাথে তিনি বলেন, শহরের কোলাহলমুক্ত পরিবেশ এখানে। চারপাশে বড় বড় ঘাস, আর বসার জন্য সুবন্দোবস্ত যে কারণে সময় ও সুযোগ পেলে পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসি। এখানে এসে পরিবারের সকলে ছবি তোলা, হাঁটা, খাওয়া দাওয়াসহ বিনা খরচে বাচ্চাদের দোলনায় উঠানো যায়। তবে কিছু কিছু সময়ে অল্প বয়সী কিশোরেরা দল বেধে আসে তারা মোটর বাইক উচ্চ শব্দে ড্রাইভ করে। এছাড়া বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি করে। এবিষয়ে অন্য দর্শনার্থী মো. নাজমুল হসাইন বলেন, এখানে শুধু আমি একা আসি না বিভিন্ন বয়সী মানুষেরা আসে। বিশেষ করে সন্ধার পর আরও সুন্দর লাগে। লাইটের আলোয় লেকটির উপর ব্রিজ দেখতে বেশ ভালো লাগে। আমি এখন পরিবার নিয়ে আসিনি। খোলা বাতাশে হাটতে ভালো লাগে। আমি মাঝে মধ্যে ঘুরতে আসি। শহরের একটু দুরে প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশ। বিকাল থেকে এই এলাকাটিতে উৎসব মূখর পরিবেশ তৈরি হয়। তবে কোন সমস্যা নেই তারপরও এই এলাকাটিতে আরও বেশি নিরাপত্তার প্রয়োজন আছে কতিপয় কিশোরেরা দলে দলে এসে পরিবেশটি ঘোলাটে তৈরি করে।আর এবিষয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park