বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

কেসিসি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী মুশফিকুর রহমানকে এক বাক প্রতিবন্ধির উপহার

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২৩

 

নিজস্ব প্রতিবেদক।।খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী এসএম মুশফিকুর রহমানকে এক বাকপ্রতিবন্ধি তার নিজ হাতে আকা একটি পেইন্টিং (ছবি) উপহার দিলেন।সাধারণ এই পেইন্টংটি মেয়র প্রার্থীর জিবনে অসাধারণ এক উপহার বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।

তিনি এবার কেসিসি’র স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেকের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দিতা করবেন।

 

গত নির্বাচনে তিনি জাতীয় পার্টির মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করলেও এবার হবেন স্বতন্ত্র প্রার্থী।নির্বাচনের পর পাঁচ বছর ঢাকায় থাকলেও আবার তিনি খুলনায় ফিরেছেন।তবে এবার নির্বাচনে জিততে না পারলেও খুলনাতেই রাজনীতি করবেন বলে সাব জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মুশফিকুর রহমান বলেন, আমি মেয়র পদে নির্বাচন করার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি। কিছুদিন খুলনার বাইরে ছিলাম।এখন নগরীর সোনাডাঙ্গা আবাসিক এলাকায় থাকি।এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবো।

এক বাক প্রতিবন্ধীর দেওয়া উপহার পেয়ে বিমোহিত হয়ে এস এম মুশফিকুর রহমান বলেন, সাধারণ মানুষ আমাকে ভালবাসে, আমি সাধারণের মাঝেই অসাধারণ খুজে পাই। সিয়াম নামের যে বাক প্রতিবন্ধী ছেলেটি কোন লোভের বশবর্তী না হয়ে, শুধুমাত্র আমাকে ভালোবেসে এই পেন্টিংটি উপহার দিল আমি এর মাঝে খুঁজে পাই আমার প্রতি তার ভালোবাসা,আবেগ,শ্রদ্ধা আর সম্মান।আমি সিয়ামের এই আবেগকে আরো সম্মান জানিয়ে ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে রইবো-খুলনার নাগরীকদের কাছে একজন সু-মানুষ হয়ে।

 

এক প্রশ্নের উত্তরে মুশফিকুর রহমান বলেন নির্বাচনে জয় পরাজয় থাকবে, তবে আমি যদি নির্বাচিত হতে পারি তবে খুলনা মহানগরের চিত্র বদলাবে না-বদলে যাবে প্রেক্ষাপট। ১২ ফিট রাস্তা হয়তো ২৪ ফিট হবে না তবে ২৪ ফিট রাস্তা কোনদিনও বারো ফিট হবে না, সে গ্যারান্টি আমি দিতে পারি।আমার অফিস,ঘর-বাসা-বাড়ি সব কিছুই থাকবে ওপেন।যেখানে কোন নাগরিক এসে আমার কাছে ধর্না ধরবেনা উল্টো নাগরিকদের কাছে ছুটে যাবে আমার টিম।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,গতবারের নির্বাচন ছিল প্রশ্নবিদ্ধ।ওই নির্বাচনে ভোটের সংখ্যা গুনে লাভ হবে না। আমি মনে করি সরকার এবার স্বচ্ছ নির্বাচন দেবে।অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

তিনি জানান, কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে পথসভা ও ঘরোয়া বৈঠক চলছে, এবার আর জাতীয় পার্টি থেকে নয়, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবো। কারণ জাতীয় পার্টির ভোট নেই,তারা সরকারের দালালি করে।আমি দালালি পছন্দ করি না, মেহনতি মানুষের সঙ্গে থাকতে চাই।

কেন মেয়র প্রার্থী হলেন-এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমি চাই একটি গুণগত পরিবর্তন। নগর ভবন হবে জনবান্ধব। নাগরিকদের সম্মান রক্ষাই হবে আমার প্রথম অঙ্গীকার। তিনি বলেন, দেশের অন্যান্য সিটি করপোরেশনের উন্নয়নের সঙ্গে খুলনার তুলনা করলে দেখতে পাই আমরা কতো পিছিয়ে আছি। এই অবস্থার অবসান ঘটাতে চাই। এই নগরীকে বাসযোগ্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব নিতে চাই। সে কারণে মেয়র পদে নির্বাচন করবো।

 

২০১৭ সালের ২৮ জানুয়ারি জাপায় যোগ দেন মুশফিক। রাজধানীর বনানীর কার্যালয়ে যোগদান অনুষ্ঠানে ২০১৮ সালের কেসিসি নির্বাচনে দলীয় মেয়র প্রার্থী হিসেবে মুশফিকুর রহমানের নাম ঘোষণা করেন জাপার চেয়ারম্যান ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

 

খোলা জিপ নিয়ে চলাফেরা করলেও বেশিরভাগ সময় সাদা পাঞ্জাবি-পায়জামা ও মাথায় পাগড়ি পড়েন।বিশাল দাড়ির সঙ্গে সাদা পাঞ্জাবি-পায়জামার কারণে তাকে ‘দরবেশ’ বলেও ডাকেন অনেকে।কেউ কেউ ইদানিং হালের ক্রাশ খুলনার KGF বলে থাকেন।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park