বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পাইকগাছায় বাল্য বিবাহ বন্ধ সহ অর্থ দন্ড প্রদান করেন-ইউএনও মাহেরা নাজনীন খুলনার গাইকুরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় যুবকের মরদেহ উদ্ধার রামপালে উপজেলা নির্বাচনে ৩ পদে ১২ জনের মনোনয়নপত্র জমা পূত্র পাচারের অভিযেগে এক নারীর বিরুদ্ধে আড়ংঘাটা থানায় অভিযোগ দিঘলিয়া উপজেলা প্রশাসনের বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব; নাব্যতা সঙ্কটের শংকা পাইকগাছায় ১ম ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ একাডেমির উদ্বোধন খুলনায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাঙালি জাতির শাশ্বত ঐতিহ্যের প্রধান অঙ্গ পহেলা বৈশাখ : রাষ্ট্রপতি মুক্তিপণ পেয়ে জাহাজ ছাড়ে জলদস্যুরা, নাবিকরা সুস্থ : মালিক পক্ষ

আবু নাসের হাসপাতালে রোগ নির্ণয়ে কয়েক কোটি টাকার মেশিন অকেজোই পড়ে আছে

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২২

কাগজ ডেস্ক।।দক্ষিণাঞ্চলের লাখো মানুষ প্রতিনিয়ত চিকিৎসা সেবা নিতে আসে শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে । আওয়ামী সরকার বিদায়ের পর বিএনপি দ্বিতীয় দফায় যখন রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসে তখন কোন কারণ ছাড়াই হাসপাতালটি বন্ধ ঘোষণা করে। তখন জনগণের সেবার জন্য এ হাসপাতালে আনা কোটি কোটি টাকার চিকিৎসা সরঞ্জামাদি নষ্ট হওয়া শুরু হয়। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণাঞ্চলের অসহায় দরিদ্র মানুষের উন্নত চিকিৎসার জন্য হাসপাতালটি ফের চালু করেন। শহীদ শেখ আবুনাসের বিশেষায়িত হাসপাতালটিতে এখন কোটি কোটি টাকা মূল্যের চিকিৎসা সরাঞ্জামাদি বিকল হয়ে পড়ে আছে। বিকল এসব মেশিন গুলো সচল করতে না পারায় এগুলি এক প্রকার গলার কাটা হয়ে দাঁড়িয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে। মুলতঃ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের একমাত্র উন্নত আধুনিক চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠান শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতাল। যেখানে সরকারীভাবে স্বল্প খরচে গরীব অসহায় রোগীদের উন্নত ও আধুনিক চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা রয়েছে। তবে দীর্ঘদিন যাবৎ এসব রোগীদের চিকিৎসার কাজের জন্য আধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জামাদি মেশিন গুলো বিকল হয়ে পড়ে আছে। এছাড়া ব্রেন টিউমার অপারেশনের জন্য কোটি টাকা ব্যায়ে অপারেটিভ মাইক্রোস্কপ অব নিউরো সার্জারী মেশিনটি এখন ও পর্যন্ত নতুন অবস্থায় প্যাকেটে বস্তায় বন্দি হয়ে পড়ে আছে হাসপাতালটিতে। এখনও পর্যন্ত এই মেশিনটি ইনস্টল করতে পারেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া রেডিওলজি বিভাগে ১টি এম-আরআই মেশিন, ১টি সিটি স্ক্যান মেশিন বিকল হয়ে পড়ে আছে । এখন ও পর্যন্ত এটি মেরামত করা সম্ভব হয়নি। হার্টের রোগীদের জন্য ১টি ইটটি মেশিন ও বিকল হয়ে পড়ে আছে প্রায় দুই বছর যাবৎ। পাশাপাশি ১টি ক্যাথল্যাব ও ১টি এনজিওগ্রাম মেশিন ও বিকল হয়ে পড়ে আছে। যে কারণে হাসপাতালটিতে গরীব অসহায় রোগীরা কিছুটা হলেও চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এবিষয়ে শহীদ শেখ আবুনাসের হাসপাতালটির প্রকৌশলী মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ এই হাসপাতালে আধুনিক বেশ কয়েকটি চিকিৎসার সরাঞ্জামাদি মেশিন বিকল হয়ে পড়ে আছে। আমরা বেশে কয়েকবার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছি ও চিঠি প্রেরণ করেছি। সেখান থেকে বড় বড় প্রকৌশলীরা ও এসে এসব বিকল মেশিন গুলো আর সচল করতে পারেনি। যে কারণে এগুলি এখন পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। এছাড়া ব্রেনের টিউমার অপারেশনের জন্য আধুনিক অপারেটিভ মাইক্রোস্কপ অব নিউরো সার্জারী মেশিনটি এখন ও পর্যন্ত নতুন অবস্থায় পলিথিনে মোড়ানো আছে। ঢাকা থেকে যে অবস্থায় পাঠিয়েছিল সেই অবস্থায় পড়ে আছে এখনও পর্যন্ত মেশিনটি ইনস্টল বা সচল করা সম্ভব হয়নি। আমরা মেশিনটি ফেরত নেয়ার জন্য মন্ত্রানালয়ে চিঠি প্রেরণ করেছি। তবে এখনও পর্যন্ত তারা কোন ব্যবস্থা নেননি। এছাড়া বড় বড় এসব মেশিন গুলো বিকল থাকায় বিভিন্ন সমস্যা হচ্ছে। একদিকে জায়গা স্বল্পতা পাশাপাশি বিকল মেশিন গুলো হাসপাতালটির রোগ নির্ণয় কক্ষের বড় একটি জায়গা দখল করে আছে। অন্য দিকে রোগীর প্রচন্ড চাপে সেবা নিতে ভিড়ের কারণে দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কারণ এসব মেশিন গুলো সচল থাকলে রোগীরা একটু হলেও বেশি সেবা পেত। এছাড়া সরেজমিনে দেখা যায় হাসপাতালটিতে বর্তমানে প্যাথলজি বিভাগসহ এক্স-রে মেশিন, আলট্রাসনোগ্রাম মেশিন, ইকো, ইসিজি মেশিন, ডেন্টাল মেশিন, ব্রেন টিউমার অপারেশন মেশিন, হৃদরোগের জন্য এনিজওগ্রাম, ক্যাথল্যাব, ডায়ালাইসিস মেশিনসহ, সিটিস্ক্যানিং এমআরই চিকিৎসার সরঞ্জামসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের প্রশিক্ষিত জনবল এর অভাবে কাঙ্খিত চিকিৎসাসেবা পাচ্ছেনা আগত রোগীরা। এ ছাড়া হাসপাতালটিতে চিকিৎসক, ফার্মাসিস্ট, সিকিউরিটি আনসার সদস্য, ৪র্থ শ্রেনীর পরিচ্ছন্নতা কর্মি, আয়া ও ওয়ার্ড বয়সহ লোকবল সংকটে হাসপাতালের কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। শহীদ শেখ আবুনাসের হাসপাতালটির যেখানে অর্থপেডিক্স, কার্ডিওলজি, নিউরোলজি, ইউরোলজি, ডায়াবেটিস, কিডনি, দন্ত, লিভার, নিউরোমেডিসিন, বার্ন এন্ড প্লাষ্টিক সার্জারি-ইউনিট, ফিজিথেরাপি কক্ষ রয়েছে। হাসপাতালটিতে বহির্বিভাগে প্রতিদিন হাজারের মত রোগী সেবা নিতে আসে তবে পর্যাপ্ত চিকিৎসক ও জনবলের অভাবে প্রতিদিন বিশৃঙ্খলা ও রোগীদের ভীড় বেড়েই যাচ্ছে। এবিষয়ে রোগী আজমল হোসেন বলেন, হাসপাতালটিতে হার্টের জন্য ইকো পরীক্ষা করতে আসছিলাম। ইকো রুম থেকে বলেছে দুই মাস পর আসেন এখানে অনেক সিলিয়াল। যে কারণে আমি বাহিরের থেকে পরীক্ষা করে আনছি। এছাড়া ভর্তি রোগীদের সিরিয়াল পেতে গেলে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়। এবিষয়ে শহীদ শেখ আবুনাসের হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ শেখ আবু শাহীন বলেন, এসব চিকিৎসা সরাঞ্জামাদি আমি যোগদান করার আগের থেকে বিকল হয়ে আছে। তবে আমি চেষ্টা করছি নতুন ভাবে আবারো চিকিৎসা সরঞ্জামাদি সচল করার জন্য। এসব চিকিৎসার বিকল সরাঞ্জমাদি মেশিনগুলো মন্ত্রনালয়ে ফেরত পাঠানোর জন্য বেশ কয়েকবার চিঠি দেয়া হয়েছে। এছাড়া হাসপাতালে কিছুটা চিকিৎসক বাড়ানো হয়েছে। অন্যান্য জনবল সংকট আছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মহাদয়কে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধিন আছে।।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park