বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পাইকগাছায় বাল্য বিবাহ বন্ধ সহ অর্থ দন্ড প্রদান করেন-ইউএনও মাহেরা নাজনীন খুলনার গাইকুরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় যুবকের মরদেহ উদ্ধার রামপালে উপজেলা নির্বাচনে ৩ পদে ১২ জনের মনোনয়নপত্র জমা পূত্র পাচারের অভিযেগে এক নারীর বিরুদ্ধে আড়ংঘাটা থানায় অভিযোগ দিঘলিয়া উপজেলা প্রশাসনের বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব; নাব্যতা সঙ্কটের শংকা পাইকগাছায় ১ম ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ একাডেমির উদ্বোধন খুলনায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাঙালি জাতির শাশ্বত ঐতিহ্যের প্রধান অঙ্গ পহেলা বৈশাখ : রাষ্ট্রপতি মুক্তিপণ পেয়ে জাহাজ ছাড়ে জলদস্যুরা, নাবিকরা সুস্থ : মালিক পক্ষ

আগামী সেপ্টেম্বরে পাবনা-ঢাকা সরাসরি ট্রেন চলবে: রাষ্ট্রপতি

খুলনার কাগজ
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৬ মে, ২০২৩

 

নিজস্ব প্রতিবেদক।। আগামী সেপ্টেম্বরে পাবনা থেকে ঢাকা সরাসরি ট্রেন চলাচল শুরু হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

মঙ্গলবার বিকেলে পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ মাঠে নাগরিক সমাজের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেন রাষ্ট্রপতি।রাষ্ট্রপতি বলেন,আন্দোলনের নামে অস্থিতিশীলতা তৈরি দেশের জন্য কখনো মঙ্গলজনক হয় না।রাজনৈতিক হিংসা ভুলে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে হবে। দাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আসন্ন ক্ষমতায় যাওয়া বা পরিবর্তন আনার একমাত্র উপায় নির্বাচন। আন্দোলনের নামে সন্ত্রাস ও হিংসার রাজনীতি কখনো দেশ, সমাজ ও অর্থনীতির জন্য কল্যাণকর হতে পারে না। সংহাত ভুলে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ঐকমত্যে এসে গণতন্ত্রকে বিকশিত হতে আমাদের সবার সহযোগিতা করা উচিত।

রাষ্ট্রপতি বলেন,পদ্মাসেতু নিয়ে সরকারকে রাজনৈতিকভাবে পরাস্ত করার ষড়যন্ত্র হয়েছিল। এটা দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ছিল। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ছিল। কিন্তু আমি শক্ত হাতে মোকাবিলা করেছি। আমি রাজপথে থেকেই বঙ্গভবনে গিয়েছি। বীর মুক্তিযোদ্ধা বেবী ইসলামের সভাপতিত্বে নাগরিক সংবর্ধনা সভায় বক্তব্য দেন- ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকু, স্কয়ার গ্রুপের পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, পাবনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল, নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু প্রমুখ।

এর আগে সোমবার রাতে শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী পাবনার লক্ষ্মী মিষ্টান্ন ভাণ্ডারে আসেন রাষ্ট্রপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সাহাবুদ্দিন। তিনি আকস্মিকভাবে সবাইকে চমকে দিয়ে তার স্মৃতিবিজড়িত এই মিষ্টির দোকানে কিছুটা সময় কাটান। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের অনেকটা সময় কেটেছে তার এই প্রতিষ্ঠানটির আঙিনায় ও বেঞ্চে বসে।

রাষ্ট্রপতি হওয়ার পরও তিনি তার অতীত ভুলে যাননি। নিজ জেলা পাবনায় চার দিনের সফরের প্রথম দিন সন্ধ্যায় সবাইকে অবাক করে হঠাৎই চলে আসেন লক্ষ্মী মিষ্টান্ন ভাণ্ডারে মিষ্টি খেতে। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের অনেকটা সময় তিনি পার করেছেন এই মিষ্টির দোকানের আঙিনায় আড্ডার ছলে। তৎকালীন সময়ে জেলার বেশিরভাগ ছাত্রনেতা ও তার বন্ধুবান্ধবদের বসবার অন্যতম স্থান ছিল এই মিষ্টির দোকান।

তবে প্রশাসনিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা কঠোর হওয়ায় কিছু মানুষ সেখানে প্রবেশের অনুমতি পায়। এদের মধ্যে লক্ষ্মী পরিবারের সদস্য ও স্বত্বাধিকারী প্রয়াত স্বর্গীয় লক্ষ্মী নারায়ণ ঘোষের ছেলে ভোলানাথ ঘোষ, অনুফ কুমার ঘোষ, বাদল কুমার ঘোষ, নাতি গৌতম ঘোষ, বাপ্পা ঘোষ প্রমুখ। এছাড়া এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন- স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স, পাবনা জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসন, পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্সী, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহিম পাকন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম লাল, আওয়ামী লীগ নেতা বিজয় ভূষণ রায়, প্রেস ক্লাব সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান প্রমুখ।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Khulnar Kagoj
ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট Shakil IT Park